ভক্তদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে শেষ সমাহিত করা হলো এন্ড্রু কিশোরকে , নাটোরেও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন

0
ভক্তদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে শেষ সমাহিত করা হলো এন্ড্রু কিশোরকে , নাটোরেও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন, সংবাদ শৈলী।

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ভক্তদের শেষ প্রদ্ধাজ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে চির বিদায় নিলেন শে বরেণ্য সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। নাটোরেও শিল্পীর প্রতি জানানো হয় শ্রদ্ধা। বুধবার সকালে চার্চে বরেণ্য এই শিল্পীকে শ্রদ্ধা জানাতে ভীড় করেন নানা শ্রেণি ও পেশার মানুষ। করোনা উপেক্ষা করে ভক্তরা শিল্পীর কফিনে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানান। শিল্পীর শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী বরিশাল থেকে ফাদার বিশপ সৌরভকে নিয়ে আসা হয় শেষকৃত্য অনুষ্ঠানের এই প্রার্থনার জন্য। বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত চলে এই প্রার্থনা অনুষ্ঠান। এরপর কিছুক্ষণের জন্য চার্চের বাইরে তৈরি করা একটি মঞ্চে মরদেহ রাখা হয় সকলের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য। ওই মঞ্চটি স্ত্রী-সন্তানরা নিজ হাতে তৈরী করেছিলেন এন্ড্রুর শেষ বিদায়ের জন্য।

এ এন্ড্রু কিশোরকে যে সিমেট্রিতে (কবরস্থান) সমাহিত করা হয় , সেখানে তার বাবা ক্ষীতিশ চন্দ্র বাড়ৈ এবং মা মিনু বাড়ৈকেও সমাহিত করা হয়েছিল। তবে কিশোরের সমাধি হচ্ছে তার দেখিয়ে দেওয়া জায়গায়। যেখান থেকে পরিবারের সদস্যদের সমাধি সামান্য একটু দূরে।

রাজশাহীতে জন্ম নেওয়া এন্ড্রু কিশোর প্রায় ১৫ হাজার গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। ৮ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া এই শিল্পী ক্যানসারে ভুগছিলেন। গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে তিনি সিঙ্গাপুরেই ছিলেন চিকিৎসার জন্য।

কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপি চিকিৎসার পরও দ্বিতীয়দফায় তার দেহে ক্যানসার বাসা বাঁধে। ফলে চিকিৎসকরা হাল ছেড়ে দেন। তাই শিল্পীর ইচ্ছায় তাকে দেশে আনা হয় গত ১১ জুন। এরপর ২০ জুন তিনি রাজশাহীতে বড় বোনের বাসায় গিয়ে ওঠেন। ওই বাড়িটির একটি অংশেই রয়েছে ক্লিনিক। সেখানেই জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত সেবা চলছিল এন্ড্রু কিশোরের।

আর গত ৬ জুলাই সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকায় থাকা বড় বোন ডা. শিখা বিশ্বাসের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর। এরপর তার মরদেহ রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়। ছেলে-মেয়ের অপেক্ষায় ১৫ জুলাই এন্ড্রু কিশোরের শেষকৃত্যানুষ্ঠানের দিন নির্ধারণ করে পরিবার।অপরদিকে এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে নাটোরেও বাংলাদেশ মিউজিশিয়ান ফেডারেশন নাটোর জেলা শাখার পক্ষ থেকে নাটোর প্রেস ক্লাবের সামনে মোমবাতি হাতে নিয়ে বুধবার রাতে সারিবদ্ধভাবে দাড়িয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। এসময় নানা ম্যেণি ও পেশার মানুষকে মমোবাহি হাতে শ্রদ্ধা জানাতে দেখা যায়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে