উত্তরা গণভবন দর্শকদের বিমুগ্ধ করে

নাটোরের দিঘাপতিয়া রাজবাড়ি একটি প্রাচীন ঐতিহ্যমন্ডিত দর্শনীয় স্থান। প্রায় তিন’শ বছরের পুরোনো এই জমিদার বাড়ি তার প্রাচীন ঐতিহ্য নিয়ে এখনও পর্যন্ত দেশ ও বিদেশের কাছে উত্তরা গণভবন নামে পরিচিত। দর্শনার্থীদের প্রধান আকর্ষন এই রাজবাড়ি। রাজবাড়িটি তার আপন সৌন্দর্য,ইতিহাস,শৈল্পিক নিদর্শন আর অনন্যতায় যুগ যুগ ধরে দৃষ্টি কাড়ছে দর্শনার্থীদের। রাজবাড়ির প্রবেশের প্রধান ফটরে নির্শাণ শৈলী সবাইকে বিমুগ্ধ করে। এছাড়া প্রধান প্যালেসসহ মোট ১২টি ভবন এবং রাজবাড়ি ঘিরে বাউন্ডারী ওয়াল , মুঘল এবং পাশ্চাত্য আর্কিটেকচারাল ডিজাইন অনুসারে রাজ প্রাসাদটি সৌন্দর্যমন্ডিত এবং দূর্লভ করে তোলেন। রাজবাড়িটির দক্ষিণাংশে একটি ইতালিয়ান গার্ডেন তৈরী করা হয়। এখানে শত শত রঙের ফুল এবং ফল গাছ রোপণ করা হয়। এর মাঝে স্থাপন করা হয় কৃত্তিম ঝর্ণা এবং শ্বেতপাথরের ভাস্কর্য।
প্রতিষ্ঠা: দিঘাপতিয়া রাজপ্রাসাদের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন রাজা দয়ারাম রায়। তিনি এক সময় নাটোর রাজের দেওয়ান ছিলেন। তিনিই ১৭৩৪ সালে সর্বপ্রথম দিঘাপতিয়া রাজবাড়িটি নির্মাণ করেন। এটি বর্তমান নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের পাশে অবস্থিত এবং নাটোর প্রধান শহর থেকে ২.৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।বিস্তারিত দেখুন ভিডিও চিত্রে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.